কওমি শিক্ষার্থীদের বলছি….

আমাদের ইসলাম ভিন্ন খবর সোশ্যাল মিডিয়া থেকে

সাব্বির আহমাদ উসমানী- https://www.facebook.com/profile.php?id=100007930861207

১. দূরদূরান্তের শিক্ষার্থীরা এখুনিমাদরাসায় চলে যাবেন না। মাদরাসাখুলবার পরিপূর্ণ এবং স্থায়ী সিদ্ধান্তআসা পর্যন্ত বাড়িতেই অবস্থান করুন।কারণ, এখনো পর্যন্ত কোনোমাদরসাতেই সম্ভবত বোর্ডিং ব্যবস্থাচালু হয়নি । ফলে খাদ্যকষ্টে ভোগারসম্ভবনা রয়েছে চরমভাবে।

২. পুরাতন ছাত্রদের ভর্তির কোনোঝামেলা নেই আশাকরি। কারণ,মাদরাসা কর্তৃপক্ষ খুব সহজেই তাদেরভর্তি হওয়ার সুব্যবস্থা করে দিয়েছেন।ভর্তির ভোগান্তি পোহাতে হবে নতুনছাত্রদের। ভোগান্তি হলেও আমিতাদের বলবো– আপনারা ধৈর্য ধরুন।এবং অপেক্ষা করুন। যে প্রতিষ্ঠানেভর্তি হতে চাচ্ছেন, আগে সেটিপরিপূর্ণ খুলুক। তারপর যাওয়ার চেষ্টাকরুন। আগে আগে গিয়ে অযথা দুর্ভোগপোহাবেন না।

৩. মাদরাসায় রওয়ানা হওয়ার সময়রাস্তার খরচাপাতি পূর্বের তুলনায় একটুবেশি পরিমাণে সঙ্গে রাখুন।অপদার্থরা পরিবহনের ভাড়া কাটছেখুব বেশি পরিমাণে। অত্যাবশ্যকীয়এবং অপ্রীতিকর এবিষয়টি আশাকরিআমরা ভালোভাবে খেয়াল রাখব। এবংআমল করবো।

৪. হিফজ পড়ুয়া ছাত্রদের অভিভাবকদেরবলছি– করোনা পরিস্থিতি সহনীয়হওয়ার আগ পর্যন্ত আপনার কচিকাচাসন্তানদেরকে মাদরাসায় নাপাঠানোর অনুরোধ রইল। কারণ, নিজেরপ্রতি খেয়াল রাখার সেই যোগ্যতাএবং সক্ষমতা এখনো হয়নি ওদের। তাইকষ্ট হলেও, সমস্যা মনে হলেও আপাততসন্তানদেরকে নিজেদের কাছেই রাখুন।এবং নিরাপদে থাকুন।

৫. পুরাতন শিক্ষার্থীদের মধ্যে যারাভর্তি হয়ে গিয়েছেন, তাদের এখন আরমাদরাসায় যাওয়ার কোনোই প্রয়োজননেই। বাড়িতেই থাকুন আপনারা। ক্লাসশুরু হওয়ার স্থায়ী সিদ্ধান্ত যেদিনআসবে, সেদিন বা তার দু’একদিন আগেমাদরাসায় পৌঁছে যাবেন,ইনশাআল্লাহ। এতে সবারই কল্যাণরয়েছে।পরিশেষে উদাত্ত আহবান রইলসর্বস্তরের কওমিয়ানদের প্রতি–অসহায় নিঃস্ব এবং গরীব বহু ছাত্রভাইএমন রয়েছেন, যাদের আর্থিক অবস্থাখুবই দুর্বল। ভর্তি হওয়ার টাকাটুও যাদেরনেই। সামর্থ্যবানরা দয়াকরে এগিয়েআসুন তাদের সাহায্যার্থে। বান্দাযেমন আনন্দিত হবেন, তেমনি খুশিহবেন রাযযাকও। এবং এর উত্তমপ্রতিদান তিনি দিবেনই,ইনশাআল্লাহ!

Leave a Reply

Your email address will not be published.