করোনার আরেক ধরন মিলল নাইজেরিয়ায়

আর্ন্তজাতিক

Day

Night


যুক্তরাজ্য, দক্ষিণ আফ্রিকার পরে এবার নাইজেরিয়া। বড়দিনে আফ্রিকার সবচেয়ে জনবহুল দেশে করোনাভাইরাসের নতুন একটি ধরনের আবির্ভাবে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, অন্য দুটি দেশের চেয়ে নাইজেরিয়ার ধরনটি চরিত্রগতভাবে ভিন্ন। অর্থাৎ আলাদা ‘ভেরিয়্যান্ট’। কিন্তু মিল একটাই—বাকি দুটির মতো এটিও মিউটেশন ঘটিয়ে সংক্রমণ ক্ষমতা বাড়িয়েছে। আফ্রিকা সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের পরিচালক জন কেনগাসং বলেন, ব্রিটেন ও দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে এটি ভিন্ন স্ট্রেন।

নাইজেরিয়ায় যে স্ট্রেনটি দেখা যাচ্ছে, সেটি সম্পর্কে খুব কম তথ্যই পাওয়া গেছে। তবে এটিতেও দক্ষিণ আফ্রিকার ‘৫০১.ভি২’ স্ট্রেনের মতো ‘৫০১ মিউটেশন’ ঘটেছে। নতুন স্ট্রেন সম্পর্কে গবেষণা চলছে বলে জানিয়েছেন কেনগাসং। নাইজেরিয়ায় ২০ কোটিরও বেশি মানুষের বাস। অন্য অনেক দেশের তুলনায় এখানে সংক্রমণ কম ছিল এত দিন। সম্প্রতি দৈনিক সংক্রমণ হাজার ছাড়িয়েছে এ দেশে।

করোনাভাইরাসের নিত্যনতুন চমকে কার্যত নাজেহাল গোটা বিশ্ব। মোট সংক্রমণ আট কোটি ছাড়িয়েছে। সাড়ে ১৭ লাখ মৃত্যু। এই পরিস্থিতিতে প্রায় মলিন বড়দিন। বেথেলহেমে ক্রিসমাস ইভে বড় শোভাযাত্রা হয়। এবারও ব্যান্ড-বাজনা সবই ছিল, কিন্তু দেখার জন্য লোক ছিল হাতে গোনা। সূত্র : কালের কণ্ঠ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.