গভীর রাত থেকে আবার গুঞ্জন কুরানের পাখিদের

আমাদের ইসলাম মাদরাসার ইতিহাস হক কথা

গভীর রাতে হেফজখানাগুলোতে জেগে উঠতো কচিকন্ঠি কুরানের পাখিরা।গভীর রাত থেকেই গুনগুনিয়ে কুরআন হিফজ করার সাধনায় লেগে যেতো তারা । করোনার কারনে প্রায় চার মাস বন্ধ ছিল কুরানের এ গুঞ্জন । গত রাত থেকে আবার শুরু হয়েছে আল্লাহর কালামের সে মধুর আওয়াজ। আজ থেকে মাদসার হিফজ ও মক্তব বিভাগ খোলার সরকারী অনুমোদনের খবর পেয়েই ছাত্ররা উচ্ছ্বাসে গতকালেই ছুটে আসে তাদের প্রাণের মাদরাসায়।

বনশ্রী আলইকরাম দারুল কুরআন মাদরাসার হিফজ বিভাগের ছাত্র মিরাজুল ইসলাম ওবাইদার আনন্দ ও ভালোলাগার অনুভূতি জানায় হক কথাকে। ওবাইদা বলেন, আমাদের প্রিয় মাদরাসার বিরহে আমরা ব্যথিত ছিলাম। আজ মাদরাসায় আবার আসতে পেরে অনেক ভালো লাগছে। আল্লাহ যেন কখনোই আর আমাদেরকে এমন পরিস্থিতে না ফেলেন। জাতিকে যেন আল্লাহ করোনা থেকে মুক্তি দেন এই কামনা করি।

এছাড়াও দেশের প্রতিটি হিফজ খানায় শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল লক্ষ্য করার মত। ছোট ছোট ছেলেদেরকে মাস্ক পরে মাদরাসার প্রবেশদ্বার দিয়ে মাদরাসায় প্রবেশ করতে দেখা গিয়েছে। মাদরাসার প্রবেশপথে নেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্যসুরক্ষার নানান পদক্ষেপ। স্ক্যানার দিয়ে পরীক্ষা করাসহ জীবাণুমুক্ত করার জন্যে লাগানো হয় স্প্রে করার যন্ত্র।

ত্রিশ পারা হেফজ করা একদিকে যেমন আল্লাহর অশেষ মেহেরবানি, অপরদিকে অনেক পরিশ্রমসাধ্য একটি কাজ। এর জন্যে নিরবচ্ছিন্ন পরিশ্রম ও সাধনার দরকার হয়। কিন্তু করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারণে দেশের সকল শিক্ষার্থীদের মত হেফজখানার শিক্ষার্থীদেরও পড়ালেখায় ছেদ পড়ে। তাদের পড়ালেখা ছেদ পড়াটা যেহেতু অনেক বেশী ক্ষতিকর এবং শিক্ষার্থীকে অনেক পিছিয়ে দিতে পারে সেজন্য আলেমদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ১২ জুলাই থেকে হেফজখানা খোলার অনুমতি দেয় সরকার।

আলেমদের এখন জোর আবেদন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সরকার দেশের কওমী মাদরাসাগুলোর অন্যান্য বিভাগও শীঘ্রই খোলার অনুমতি  দিয়ে দিবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.