মশার সাক্ষাৎকার

জোকস মজার গল্প হক কথা

আমাদের সাথে যুক্ত হতে ডাউনলোড করুন আমাদের হক কথা এ্যাপ:App Link- http://bit.ly/app_haquekotha

আল-আমিন
সম্মানিত দর্শক-শ্রোতা, পাঠক-পাঠিকা! হক কথা টিভি এর আহলে হক স্টুডিও থেকে আপনাদেরকে জানাই আন্তরিক মোবারকবাদ। আজকের সাক্ষাৎকারে আমাদের সাথে থাকছেন আমাদের অবিচ্ছেদ্য বন্ধু, মশারীর বাহিরে,ভিতরে এমনকি কাঁথা-কম্বলের নিচের সাথী, যার গুনগুনাগুন গানের তানে আমাদের ঘুম ভাঙ্গে, তিনি আমাদের সকলের পরিচিত মুখ- মশা মিয়া। আমি তার জন্য অপেক্ষা করছি-তিনি আমাদের মাঝে এখনও এসে পৌঁছান নি। কি কারনে তিনি এখনও আসতে পারেননি তাও আমরা জানতে পারি নি। ঢাকা শহরে যানজটের যে অবস্থা তাতে স্টুডিওতে আসতে আমার বিলম্ব হওয়ার কথা ছিল। তিনি আসবেন আকাশ পথে ডানায় ভর করে, তাঁরতো বিলম্ব হওয়ার কথা নয়! তবে আমরা আশা করছি তিনি চলে আসবেন।
বলতে না বলতেই তিনি চলে এলেন-
মশা সাহেবকে আমাদের হক কথা স্টুডিওতে স্বাগতম।
বসেন বসেন, বইসাজান।
মশা- ধন্যবাদ।
হক কথা- আপনার জন্য অপেক্ষা করতে করতে ক্লান্ত।
মশা- আন্তরিকভাবে দুঃখিত। আসলে আমি বলতে ভুলে গিয়েছিলাম, আজ ছিলো আমাদের মশাজাতির সিটি নির্বাচন।
হক কথা – আপনাদের আবার নির্বাচন মানে?
মশা-মানে, আপনাদের মতো আমরাও ঢাকা সিটির অধিবাসী। আমাদেরকে নিধন করে আপনাদের সুখের জন্য কিছু দিন আগে সিটি নির্বাচন হয়ে গেল। ঢাকার এই সিটিতে সকলেই নিরাপদ থাকতে চায়, আমরাও চাই। তাই এই সিটিতে আমাদের নিরাপত্তায় করনীয় দিকনির্দেশনার জন্য আমাদের মাঝেও নির্বাচনের ব্যবস্থা আছে। আপনাদের সিটি নির্বাচনে দেখলাম ভোটারা গেল আর আসলো, লাইনে দাড়ানোর কোন প্রয়োজনই পড়ে নাই। কয়েক বছর আগের নির্বাচনেও দেখেছিলাম বেশ লম্বা লাইন। ভোটারদের দীর্ঘ সময় লাইনে থাকায় একেক নির্বাচনে আমরা প্রায় এক বছরের রক্ত টানতে পারতাম। আর এবার কামড় বসাতেই পাড়িনি।
হক কথা – বলতে পারেন নির্বিঘ্ন নির্বাচন।
মশা- হ্যাঁ, তবে আমাদের রিজিক মাটি। আপনাদের র্নিবাচন দেখে সেই ভাবনাতেই একটু দেড়ীতে ভোট কেন্দ্রে গিয়েছিলাম-ভেবে ছিলাম যামু,দিমু আর আমু। তা আর হলো না, আমাদের মশাদের প্রচুর উপস্থিতি প্রত্যেকটা ভোটকেন্দ্রে, তাই আমার এখানে আসতে বিলম্ব।
হক কথা – আপনি কোন কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন?
মশা-গুলশান লেক কেন্দ্রে।
হক কথা – আপনাদের ভোটের অবস্থা কি? কে জিতবে মনে হয়?
মশা- আমাদের সিস্টে আপনাদের ইভিএম এর চেয়েও আপডেট। আমরা কেন্দ্রে থাকতেই আমাদের নির্বাচিত নেতার নাম জানতে পারি। আমাদের সিটিতে বিশাল ভোটে কচুরিপানা মার্কায় ৩য় বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন “এডিস” মশা।
হক কথা – এবার আসল কথায় আসি-আপনারা জাতির কি উপকার করছেন বলে মনে হয়?
মশা-আমরা জাতির এমন উপকার করছি যেমন উপকার শ্বশুরও জামাইকে করতে পারে না। আমরা বহু লোকের চাকরির ব্যবস্থা করেছি। মশারী, কয়েল ও এ্যারসল কোম্পানিতে চাকরী দিয়েছি লাখ লাখ শ্রমিককে।
হক কথা -আগে আপনারা বেশ গুনগুন আওয়াজে গান গাইতেন, এখন আর তেমনটি করতে দেখি না এর কারন কি একটু বলবেন?
মশা- আপনারাই আগে বলতেন, মশার কামড় সহ্য হয় কিন্তু আওয়াজ টা…….. তাই আমরা বর্তমানে সাইলেন্স ডিভাইজ ব্যবহার করছি, আপনাদের সুবিধার জন্য। যেখানে সরকার আপনাদের কথা শোনে না, আমরা আপনাদের কথা শুনি। আপনাদের সুবিধার জন্য আমরা আমাদের ঐতিহ্যবাহী গান ছেড়ে দিয়েছি। মমতাজ বুবু কি পারবে গান ছাড়তে? পারবে না। ভেবে দেখুন আমরা মমতাজের চেয়েও অনেক ভাল। আগের কালে গান গেয়ে দেখতাম চাচা মিয়া ঘুমায় না টেরপায়। আর এখন চাচা-চাচিরা সবাই ফেসবুক আর ইউটিউবে এমন মত্ত হয়ে থাকে আমরা চামড়া তুলে নিলেও টের পায় না। গান গেয়ে শুধু শুধু এ্যনার্জি নষ্ট করে লাভ কী?
হক কথা – আগের কালে আপনারা একটু বাতাস পেলেই উড়াল দিতেন, আর এখন হাতে ঢেলে সড়ানো যায়না কেন?
মশা- বেঁচে থাকতে রক্ত আমাদের লাগবেই। রক্ত না পেলে এমন জীবন দিয়ে কি করবো? রক্তের জন্য জীবন দিয়ে দিবো। আমরা আমাদের জীবন উৎসর্গ করতে চাই দৃঢ়তায়।তাই আমরা হালকা বাতাসেও অনড়।
হক কথা – সরকারী ঔষধ ছিটালে আপনারা এত উৎপাত করেন কেন?
মশা- সরকারী ঔষধে আসলে কোন ঔষধ থাকে না, শুধু কেরসিন তেলের ধোঁয়া। কেরসিনের ধোঁয়া আর মেশিনের বিকট আওয়াজে মেজাজটা একদম ১০০% চড়ে যায়,তাই একটু উৎপাত করি।
হক কথা – বাসায় বাড়িতে কোন জায়গাটাতে বেশী অবস্থান করেন?
মশা-টয়লেটে, কারন কয়েল, এ্যারোসল, আর গুডনাইটের তান্ডবে, প্রায়ই ঘরে থাকতে পারি না। সবগুলো দুই নাম্বার,এতে আমরা মরিওনা বাঁচতেও কষ্ট হয় তাই একটু দুরে টয়লেটে অবস্থান করি আর ভাবি চান্দুরা সবাই এখানে আসবা। শীতের পোষাকের জ্বালায় শরীরের কোথাও সুই ঢুকানোর জায়গা থাকে না। অন্তত এখানে কিছু অনাবৃত পাই।
হক কথা –আপনারা কোথায় থাকাকে নিরাপদ মনে করেন?
মশা- মসজিদে- কারন নামাজীরা নামাজে থাকার কারনে আমাদেরকে থাপ্পর দিতে পারে না।
হক কথা – ইলেক্ট্রিক ব্যাট এর ব্যাপারে আপনার মন্তব্য কি?
মশা- মানবতার কাছ থেকে এটা আমাদের জন্য চরম নিষ্ঠুরতা যা আসলে কাম্য ছিল না। আমি আর নতুন করে কি বলব , যা বলার তা নবীজী সা. ই বলে গেছে। কোন প্রানীকে আগুনে পুড়িয়ে মারতে নবীজী সা. কঠিনভাবে নিষেধ করেছেন। সুতরাং আমাদের বিরুদ্ধে ইলেক্ট্রিক ব্যাট ব্যবহারের তিব্র নিন্দা জানাই।
হক কথা- আপনাদের উপদ্রব থেকে মুক্তি পাওয়ার কোন উপায় বলতে পারেন?
মশা- বললেতো বলতেই পারি। তবে এমন আত্মঘাতী কথা বলি কীভাবে? স্বজাতির কাছে অপরাধী হয়ে যাবোতো। তার পরেও হক কথা কার্যালয়ে এসে একটু হক কথা না বললেও তো চলেনা তাই বলছি- ঘরের মাঝে দাড়িয়ে নি¤েœাক্ত দোয়াটি পাঠ করে করে চার কোনের দিকে চার বার ফু দিলে আশা করা যায় আমরা মরে যাবো-
بِسْمِ اللهِ دِمَائِ مَعَ دِمَاءِكُمْ وَ دِمَاءُكُمْ مَعَ دِمَائِ اَلْحَمْدُ لِلهِ بَيْنَنَا وَ بَيْنَكُمْ
উচ্চারণ-বিসমিল্লাহি দিমাই মাআ দিমাউকুম ওয়া দিমাউকুম মাআ দিমাই আলহামদুলিল্লাহি বাইনানা ওয়া বাইনাকুম।
হক কথা- হক কথা বলার জন্য ধন্যবাদ।
হক কথা -আপনাদের কোন সফলতার গল্প আছেকি যা অনুভবে মনে তৃপ্তি পান?
মশা- হ্যাঁ- আমাদের জাতীয় নেতার কথা ভেবে আনন্দ পাই, যিনি কাকারে মারলেন।
হক কথা – বুঝলাম না, কে কাকা?।
মশা– মানে নমরুদ কাকার কথা বলছি। নাকের ভিতর দিয়ে ঢুকে মগজে আক্রমন করে কাকারে জুতা পিটা খাইয়ে মারলো যে মশা আমাদের মশা জগতে তাকে জাতীয় বীর খেতাব দিয়েছে। তার সাফল্যে আমরাও গর্বিত।
হক কথা – এতো পুরাতন গল্প, নতুন কিছু বলেন।
মশা- অহরহই এমন ঘটছে, কয়টা নতুন বলব। এই ধরুন আপনি আমার সাথে খুব ধ্যানের সাথে কথা বলছেন, আপনি কি মনে করেন এখন আপনার পা দুটি নিরাপদ আছে? নাকি আমাদের মশাদের আক্রমনে ঝালাপালা। এর চেয়ে নতুন সফলতা আর কি বলব।

হক কথা- আরে সর্বনাশ…..
দর্শক , পাঠক ! আসলেই পায়ে যে জ্বালা শুরু হয়েছে তাতে আর অনুষ্ঠান চালানো সম্ভব নয়। আমি বিদায় নিচ্ছি। তবে মশা থেকে আপনারা সাবধান থাকবেন!!!!

Leave a Reply

Your email address will not be published.