মোবাইল তথ্য

তথ্য প্রযুক্তি

মোবাইল ফোন কি?
‘মোবাইল ফোন, সেলুলার ফোন, হ্যান্ড ফোন বা মুঠোফোন।তারবিহীন টেলিফোন বিশেষ। মোবাইল অর্থ ভ্রাম্যমান বা “স্থানান্তরযোগ্য”। এই ফোন সহজে যেকোনও স্থানে বহন করা এবং ব্যবহার করা যায় বলে মোবাইল ফোন নামকরণ করা হয়েছে। মোবাইল অপারেটররা তাদের সেবা অঞ্চলকে ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, পঞ্চভুজ বা ষড়ভুজ ইত্যাদি আকারের অনেকগুলো ক্ষেত্র বা সেলে বিভক্ত করে ফেলে। সাধারণত ষড়ভুজ আকৃতির সেলই বেশি দেখা যায়। এই প্রত্যেকটি অঞ্চলের মোবাইল সেবা সরবরাহ করা হয় কয়েকটি নেটওয়ার্ক স্টেশন (সচরাচর যে গুলোকে আমরা মোবাইল ফোন কোম্পানির এন্টেনা হিসেবে জানি) দিয়ে। নেটওয়ার্ক স্টেশনগুলো আবার সাধারণত সেলগুলোর প্রতিটি কোণে অবস্থান করে। এভাবে অনেকগুলো সেলে বিভক্ত করে সেবা প্রদান করার কারণেই এটি “সেলফোন” নামেও পরিচিত। মোবাইল ফোন বেতার তরঙ্গের মাধ্যমে যোগাযোগ করে বলে অনেক বড় ভৌগোলিক এলাকায় এটি নিরবিচ্ছিন্নভাবে সংযোগ দিতে পারে। শুধু কথা বলাই নয়, আধুনিক মোবাইল ফোন দিয়ে আরো অনেক সেবা গ্রহণ করা যায়। এর উদাহরণ হচ্ছে খুদে বার্তা -এসএমএস বা টেক্সট মেসেজ সেবা, এমএমএস বা মাল্টিমিডিয়া মেসেজ সেবা, ই-মেইল সেবা, ইন্টারনেট সেবা, অবলোহিত আলো বা ইনফ্রা-রেড, ব্লু টুথ সেবা, ক্যামেরা, গেমিং, ব্যবসায়িক বা অর্থনৈতিক ব্যবহারিক সফটওয়্যার ইত্যাদি। যেসব মোবাইল ফোন এইসব সেবা এবং কম্পিউটারের সাধারন কিছু সুবিধা প্রদান করে, তাদেরকে স্মার্ট ফোন নামে ডাকা হয়।
কে আবিষ্কার করেছেন মোবাইল ফোন ?
মোটোরোলা কোম্পানিতে কর্মরত ডঃ মার্টিন কুপার এবং জন ফ্রান্সিস মিচেলকে যৌথভাবে প্রথম মোবাইল ফোনের উদ্ভাবকের মর্যাদা দেওয়া হয়ে থাকে। তাঁরা ১৯৭৩ সালের এপ্রিলে প্রথম সফলভাবে একটি প্রায় ১ কেজি ওজনের হাতে ধরা ফোনের মাধ্যমে কল করতে সক্ষম হন। মোবাইল ফোনের প্রথম বাণিজ্যিক সংস্করণ বাজারে আসে ১৯৮৩ সালে, ফোনটির নাম ছিল মোটোরোলা ডায়না টিএসি ৮০০০এক্স । ১৯৯০ সাল থেকে ২০১১ সালের মধ্যে পৃথিবীব্যাপী মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১২.৪ মিলিয়ন থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৬ বিলিয়নের বেশি হয়ে গেছে। পৃথিবীর মোট জনসংখ্যার প্রায় ৮৭% মোবাইল ফোন যোগাযোগের আওতায় এসেছে।

বাংলাদেশে মোবাইল ফোন।
মোবাইল ফোন বাংলাদেশে প্রথম চালু হয় ১৯৯৩ সালের এপ্রিল মাসে। বাংলাদেশে মোট ৬টি মোবাইল কোম্পানী রয়েছে-
১। গ্রামিন ফোন,
২। বাংলা লিং ( পুরাতন নাম সেবা),
৩। রবি (পুরাতন নাম একটেল),
৪। এয়ারটেল (পুরাতন নাম ওয়ারিদ) রবি এবং এয়ার টেল বর্তমানে একমালিকানাধীন।
৫। টেলিটক (পুরাতন নাম বি-মোবাইল ) রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন মোবাইল ফোন কোম্পানী।
৬। সিটিসেল (বর্তমানে বন্ধ)

২০২০ সালের ১১ই মার্চ রোজ বুধবার রাজধানীর মীরপুর রূপনগর বস্তিতে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। পুরো বস্তি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। বস্তির এক বাসিন্দাকে কি নিয়ে বের হতে পারছেন সাংবাদিক এর এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মোবাইল আর টেলিভিশন। এই মোবাইলের অপব্যবহারের কারণে-

১। সংসার ভাঙ্গে।
২।পরকীয়া-ঘটে।
৩। অবৈধ প্রেম হয়।
৪। অবৈধ মিলন হয়।
৫। মিথ্যা বলা হয়।
৬। ঘুম নষ্ট হয়।
৭। যৌনাচার বৃদ্ধি পায়।
৮। বন্ধুত্বের বন্ধন নষ্ট হয়।
৯। আত্মীয়তার বন্ধন ছিন্ন হয়।
১০। সময় অপচয় হয়।
১১। সিনেমা ইজি হয়েছে।
১২।বাচ্চাদের লেখা পড়া নষ্ট।

মোবাইলে যা যা গিলেছে
১। ঘড়ি ,
২। ক্যালকিউলেটার।
৩। ক্যালেন্ডার।
৪। স্টুডিও।
৫। পোস্ট অফিস।
৬। টেলিফোন।
৭। রেডিও।
৮। টিভি।
৯। সিনেমা।
১০। গল্প উপন্যাসের বই।
১১। টর্চলাইট।

Leave a Reply

Your email address will not be published.