শেখ আব্দুল্লাহ জায়েদ এর জীবনী এবং তার বর্ণাঢ্য জীবনধারা

ভিন্ন খবর হক কথা হক্কানী ওলামাদের ইতিহাস

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের আলোচিত নির্বাচনের পর তৃতীয়বারের মত শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ক্ষমতায় আসা আওয়ামী লীগ সরকার টেকনোক্রেট পদে ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেন শেখ মো. আবদুল্লাহ জায়েদকে।

দেশের প্রথম সারীর হকপন্থি সকল আলেমদের সাথে তার নিয়মিত উঠাবসা ছিল। তিনি আলেমদের মতামত অনুসারেই ধর্মীয় বিষয়ে যেকোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতেন। সর্বশেষ করোনাকালীন সময়ে ধর্ম মন্ত্রণালয় কর্তৃক মসজিদ এবং মাদ্রাসা বিষয়ে সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রেও তিনি দেশের প্রথম সারীর আলেমদের মতামত নিয়েছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন সৎ এবং সজ্জন একজন মানুষ। শেখ আব্দুল্লাহ জায়েদ এর জীবনী এবং তার বর্ণাঢ্য জীবনধারা উল্লেখ করা হলো –

জন্ম : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহ ১৯৪৫ সালের ৮ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জের মধুমতী নদীর তীরবর্তী কেকানিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম শেখ মো. মতিউর রহমান এবং মাতা মরহুমা মোসাম্মৎ রাবেয়া খাতুন। চার ভাই তিন বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়।

শিক্ষাজীবন : তিনি স্থানীয় গওহরডাঙ্গা হাফেজিয়া মাদরাসায় পবিত্র কোরআন হেফজের মাধ্যমে শিক্ষাজীবন শুরু করেন। এরপর একই মাদরাসার কওমী ধারায় পড়াশোনা করেন। তবে কওমী ধারায় তিনি পড়াশোনা শেষ করেননি। কিন্তু তিনি মুজাহিদে আযম খ্যাত আল্লামা শামছুল হক ফরিদপুরী রহমতুল্লাহি আলাইহির আপনজন ছিলেন। শামসুল হক ফরিদপুরী রহমতুল্লাহি তাকে খুবই স্নেহ করতেন এবং ভালোবাসতেন।

তিনি সুলতানশাহী কেকানিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা এবং সুলতানশাহী কেকানিয়া হাই স্কুল থেকে ১৯৬১ সালে মেট্রিক পাসের মাধ্যমে মাধ্যমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন। এর খুলনার আযম খান কলেজ থেকে ১৯৬৩ সালে উচ্চ মাধ্যমিক, ১৯৬৬ সালে বিকম (অনার্স) ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। পরবর্তীকালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭২ সালে এমকম এবং ১৯৭৪ সালে অর্থনীতিতে এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ১৯৭৭ সালে ঢাকা সেন্ট্রাল ‘ল’ কলেজ থেকে এলএলবি ডিগ্রিও অর্জন করেন।

কর্মজীবন : শিক্ষাজীবন শেষে তিনি সুলতানশাহী কেকানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। পরবর্তীকালে তিনি অ্যাডভোকেট হিসেবে গোপালগঞ্জ জজকোর্ট এবং ঢাকা জজকোর্টে প্র্যাকটিস শুরু করেন। তিনি ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। কিন্তু রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে দেশসেবা করার লক্ষ্যে চাকরিতে যোগ দেননি।

তবে রাজনীতিতে পুরোপুরি সক্রিয় হবার পর তিনি দীর্ঘদিন ধরে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নরসের সম্মানিত গভর্নর হিসেবে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেন। তিনি কওমী মাদরাসা বোর্ডগুলোর শিক্ষা সনদের যে সরকারি স্বীকৃতি দেওয়া হয়, তা অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।

তিনি ১৯৯৬-২০০১ সাল পর্যন্ত অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকতাও করেছেন তিনি। এছাড়া তিনি অসংখ্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা এবং পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ধর্মীয় ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখে আসছিলেন।

রাজনৈতিক জীবন : ধর্মীয় চিন্তা ধারা ঠিক রেখেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ছাত্রজীবনেই তিনি রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হন। তিনি খুলনার আযম খান কমার্স কলেজে প্রথম ভিপি নির্বাচিত হন। ষাটের দশকে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে পূর্ব পাকিস্তানে ছয় দফার উত্তাল আন্দোলন চলছিল। এ সময় ১৯৬৬ সালের ছয় দফা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যমে রাজনীতিতে গভীরভাবে সম্পৃক্ত হন। যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মনির নেতৃত্বে তিনি আওয়ামী যুবলীগে যোগদান করেন।

এ সময় তিনি বঙ্গবন্ধুর সরাসরি তত্ত্বাবধানে গঠিত গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি কেন্দ্রীয় আওয়ামী যুবলীগের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি ১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থান আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। এরপর ১৯৭০ এর নির্বাচনে স্থানীয় রাজনীতিতে জড়িত হয়ে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের ব্যাপক নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ফ্রন্ট মুজিব বাহিনীর সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত হয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রাম শুরু হলে তিনি মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন।

তিনি ১৯৭৩ সালে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত বিসিএস পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। কিন্তু রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে দেশসেবা করার লক্ষ্যে চাকরির পরিবর্তে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং তার নেতৃত্বে রাজনীতি করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। এরপর কাউন্সিলের মাধ্যমে গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। দীর্ঘদিন তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন। তিনি জাতীয় পর্যায়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

শেখ মো. আবদুল্লাহ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্নেহধন্য ছিলেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে বৃহত্তর খুলনা অঞ্চলে বিভিন্ন সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার নির্বাচনী সংসদীয় আসন-২১৭, গোপালগঞ্জ-০৩ (টুঙ্গীপাড়া-কোটালীপাড়া) আসনে যতবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন, শেখ আবদুল্লাহ তার পক্ষে নির্বাচনী এজেন্ট হিসেবে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে সব কার্যক্রম পরিচালনা করতেন। তিনি নির্বাচন পরবর্তী সময়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকার সংসদীয় প্রতিনিধি হিসেবে সততা, নিষ্ঠা ও সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা স্বদেশে প্রত্যাবর্তনের পর শেখ আবদুল্লাহ তার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের প্রতি আস্থাশীল হয়ে সক্রিয়ভাবে রাজনীতিতে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বোর্ড অব গভর্নরসের সম্মানিত গভর্নর হিসেবে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেন। তিনি কওমি মাদরাসা বোর্ডগুলোর শিক্ষা সনদের যে সরকারি স্বীকৃতি দেওয়া হয়, তা অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

তিনি ১৯৯৬-২০০১ সাল পর্যন্ত অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। বিভিন্ন শিক্ষা, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকতাও করেছেন তিনি। এছাড়া তিনি অসংখ্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা এবং পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ধর্মীয় ক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রেখে আসছিলেন। শেখ আব্দুল্লাহ ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব লাভ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.