সাদিয়ানী তাবলিগ জামাতের ২৫০০ বিদেশি কর্মী ১০ বছর ভারতে ঢুকতে পারবেন না

আর্ন্তজাতিক ভিন্ন খবর

২ হাজার ৫৫০ সাদিয়ানী তাবলীগ সদস্য এখন কালো তালিকায়। ভারতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার মাঝেও গত ১৩ই মার্চ দিল্লির নিজামুদ্দিন এলাকায় বয়ানের আয়োজন করে তাবলিগ জামাত। দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রালয় বলছে জামাতের বেশিরভাগ বিদেশি সদস্যই ট্যুরিস্ট ভিসায় ঢুকেছিলেন।

গত ২৮ মে জামাতের ৫৪১ জন বিদেশি সদস্যের বিরুদ্ধে ১২ পাতার চার্জশিট দেয় দিল্লি ক্রাইম ব্রাঞ্চ। তারপরই কঠোর পদক্ষেপের সিদ্ধান্ত নেয় ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার।

দিল্লিতে ওই মারকাজের ধর্মীয় অনুষ্ঠানের মূল উদ্যোক্তা ছিলেন জামাত প্রধান মাওলানা মোহাম্মদ সাদ কান্দলভি। অনুষ্ঠানে কমপক্ষে ৯ হাজার তাবলিগ সদস্য অংশ নেন। তারপর তারা ছড়িয়ে পড়ে সারা ভারতে। প্রথম দফার লকডাউনে নিজামুদ্দিন ও আশেপাশের এলাকায় প্রায় ২ হাজার ৩০০ জামাত সদস্য ছিলেন। তাদের সরিয়ে এলাকা খালি করতে, আসরে নামতে হয় ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপেদেষ্টা অজিত দোভালকে।

বলা হচ্ছে ট্যুরিস্ট ভিসায় ঢুকে তারা ভ্রমণ না করে ধর্মপ্রচার করেছেন। যা ভারতের ভিসা আইনের বিরুদ্ধ। এছাড়া দিল্লি চার্জশিটে রয়েছেন মার্কাজ নিজামুদ্দিন ও সন্দেহভাজন মাওলানা সাদও। মাওলানার আত্মীয় ফয়সাল ফারুকও রয়েছেন।

দিল্লিতে সংঘর্ষের মাসখানেক আগে ফয়সাল যমুনা বিহার ও সংলগ্ন এলাকায় কোটি টাকার ওপর সম্পত্তি কিনেছিলেন। সংঘর্ষে উস্কানি দিতে সেই টাকা ব্যবহার করা হয়েছিল কিনা, খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.