স্ত্রীর সাথে অভিমান করে র‌্যাবের গোয়েন্দা সদস্যের আত্মহত্যা!

দেশের খবর সংবাদ

রংপুরে র‌্যাব-১৩ এর গোয়েন্দা শাখার সদস্য জাকির হোসেন (২৭) তার স্ত্রীর সঙ্গে অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে। নগরীর কলেজ রোডস্থ হাবিবনগর এলাকার ভাড়া বাসা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করা হয়। রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতয়ালি থানার ওসি আব্দুর রশিদ এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

পুলিশ জানায়, জাকির হোসেন হাবিবনগর এলাকার ওই ভাড়া বাসায় স্ত্রীসহ বসবাস করতেন। শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে জাকির হোসেনের সঙ্গে তার স্ত্রীর ঝগড়া হয়। এ ঘটনার পর জাকির হোসেনের মামা শ্বশুর বাসায় এসে জাকিরের স্ত্রীকে নিয়ে তাদের বাড়িতে চলে যান। স্ত্রী বাসা থেকে চলে যাওয়ার পর জাকির মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। রাতে স্ত্রীর মোবাইল ফোনে ম্যাসেজ পাঠান ‘আজ থেকে আর কোন কথা হবে না’। নিজের ডায়েরিতেও বেশকিছু কথাবার্তা লিখেন। পরে রাতেই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।বাসার মালিক হাফিজুর রহমান জানান, প্রায় ছয় মাস আগে এই দম্পতি বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন।  শনিবার সকাল পর্যন্ত ঘরের দরজা বন্ধ এবং বাসায় কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে গলায় রশি দিয়ে ফাঁস লাগানো অবস্থায় জাকির হোসেনের লাশ উদ্ধার করে। জাকির হোসেন জয়পুরহাট জেলার কালাই উপজেলার মুলগ্রামের রফিকুল আলম ও জোহরা বেগমের ছেলে বলে জানায় পুলিশ। তবে মৃত র‌্যাব সদস্য জাকির হোসেনের স্ত্রীর নাম ও ঠিকানা পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেনি। 

র‌্যাব-১৩ রংপুরের সহকারী পুলিশ সুপার (মিডিয়া) ছিদ্দিক আহাম্মেদ  বলেন, বিষয়টি পরে আনুষ্ঠানিক ভাবে জানানো হবে।

এ ব্যাপারে কোতয়ালি থানার ওসি আব্দুর রশিদ জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রংপুর  মেডিক্যাল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। জাকির হোসেনের বাবার বাড়িতে খবর পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হওয়ার পর তার লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। সূত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.