হযরত মুহাম্মাদ (স.)-কে নিবেদিত পংক্তিমালা

আমাদের ইসলাম কবিতা

আজ বেদুঈন তার ছেড়ে দিয়ে ঘোড়া, ছুড়ে ফেলে বল্লম
পড়ে সল্লাল্লহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।
* এখানে আজ বলতে নবীজীর স. জন্মদিন বা মীলাদুন নবীকে স. বোঝানো হযে়ছে।
আল্লাহ’ আমার প্রভু / আমার নাহি ভয়
আমার নবী মোহাম্মদ / যার তারিফ জগতময়।
—কাজী নজরুল ইসলাম

গভীর আঁধার কেটে ভেসে ওঠে আলোর গোলক
সমস্ত পৃথিবী যেন গাযে় মেখে জ্যোতির পরাগ;
তাঁর পদপ্রান্তে লেগে নডে় ওঠে কালের দোলক
বিশ্বাসে নরম হয় আমাদের বিশাল ভূভাগ।
—কবি আল মাহমুদ-এর ‘হযরত মোহাম্মদ’ কবিতার প্রথম চার লাইন

লাঞ্ছিতের আসমানে তিনি যেন সোনালী ঈগল
ডানার আওয়াজে তাঁর কেঁপে ওঠে বন্দীর দুয়ার;
ছিন্নভিন্ন হযে় যায় জাহেলের সামান্য শিকল
আদিগন্ত ভেদ করে চলে সেই আলোর জোয়ার।
—কবি আল মাহমুদ-এর ‘হযরত মোহাম্মদ’ কবিতার শেষ চার লাইন

শব্দশিল্পী সকল কালের, সকল দেশের, সব ভাষার
আহরণ করে সকল মুক্তা, হৃদয়-মাধুরী করে উজাড়
অনন্তকাল রচে যায় যদি বাণীর হার
তোমার মহিমা, তোমার তারিফ তবুও কখনো হবে না শেষ
চিত্তমাতানো বীণা-ঝংকার, অতল, গহীন সুর-আবেশ।
—কবি রূহুল আমীন খান-এর ‘রহমাতুল্লিল আলামীন’ শীর্ষক দীর্ঘ কবিতার প্রথম পাঁচ লাইন

সুদূর সমুদ্র হতে এ মরুতে আনো বন্যা, মেঘ
অশ্রান্ত শ্রাবণ তার এনে দিক আশ্বিনের সোনা
রৌদ্রদগ্ধ মাঠে-মাঠে; আজিকার অশান্ত উদ্বেগ
প্রীতির আবেগ হযে় শ্যামছায়া করুক রচনা।
ফুল-ফসলের মাঠে নিষ্করুণ বন্ধ্যতার ঘাঁটি
আবার নিশ্চিহ্ণ হোক, এনে দাও প্রাণ-পলিমাটি।
—কবি তালিম হোসেন-এর ‘রহমাতুল্লিল আলামীন’ কবিতার শেষ ছয় লাইন

‘আপনি আচরি ধর্ম’ বলে গ্রন্থ ‘দেখাও অপরে’
পিতৃপুরুষের ধর্মে আমি তাই হেনেছি শাবল।
কালের মিনার থেকে নিরন্তর বেলালী আজান-
মোহাম্মদ সেই নামঃ নিদ্রা থেকে প্রেমের উত্থান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.